ঢাকা, শুক্রবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪৩০

ক্ষমা চাওয়ার সেই পোস্ট মুছে দিলেন তিশা

নিউজ ডেক্স

 প্রকাশিত: নভেম্বর ১৮, ২০২৩, ১১:২৫ রাত  

ছবি সংগৃহিত

গত কয়েকদিন ধরেই আত্মহত্যা চেষ্টার ইস্যুতে খবরের শিরোনামে রয়েছেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী তানজিন তিশা। অভিনেতা মুশফিক আর ফারহানের সঙ্গে প্রমের সম্পর্কের জেরেই নাকি আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন তিনি। যদিও এই বিষয়টি পুরোপুরি অস্বীকার করেছেন তিশা।

তিশার আত্মহত্যার চেষ্টার খবর ছড়িয়ে পড়তেই বেশ আলোচনার সৃষ্টি হয় শোবিজ অঙ্গনে। রীতিমতো শোরগোল পড়ে যায়। তবে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেই ফেসবুকে লাইভে এসে অভিনেত্রী জানান, ফুড পয়জনিংয়ে অসুস্থ হয়ে যাওয়ায় হাসপাতালের শরণাপন্ন হন তিনি।

অন্যদিকে, সাংবাদিকদের একাধিক সূত্রের মাধ্যমে খবর প্রকাশ করা তিনি বেশ ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। তার প্রতিবাদে বিনোদন সাংবাদিকরা তাকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ার অনুরোধ জানানো হয়। সেই কথা রেখে তিনি শনিবার (১৯ নভেম্বর) সাংবাদিকদের কাছে ক্ষমা ও এবং দুঃখ প্রকাশ করে একটি স্ট্যাটাস দেন।

কিন্তু কিছুক্ষণ রেখে একই দিনে সেই পোস্ট মুছেও দেন। তবে ঠিক কি কারণে এমনটা তিনি করেছেন তা জানা যায়নি। পোস্ট মুছে কিছুক্ষণের মধ্যেই তিনি বেশ কয়েকটি হাসির ইমোজি এবং পরবর্তীতে একটি নাটকের পোস্টার শেয়ার করেন।

তিশার এই আচরণের কারণ জানতে কথা হয় অভিনয় শিল্পী সংঘের সভাপতি আহসান হাবীব নাসিমের সঙ্গে। তিনি গণমাধ্যমে বলেন, তিশার ক্ষমা চাওয়াও পোস্ট দেখে আমরা খুশী হয়েছিলাম। কারণ তিশার ওই ধরনের কথা শুনে আমরা কিছুটা বিরক্ত ছিলাম। সাংবাদিকদের সঙ্গে এভাবে কথা বলতে পারে না। সে যে ধরনের কথা বলেছে সেটা কোনোভাবেই শিল্পী সুলভ কথা হতে পারে না। তারপর সে যখন এই পোস্ট দেয়,পোস্টে যেভাবে সে ব্যাখা করেছে তার হতাশা, ডিস্টার্ব মাইন্ড থেকে যে ধরনের কথা বলেছে তার জন্য সবাই ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন৷ এটা খুব সুন্দর আঙ্গিকে ক্ষমা চাওয়া ছিল। কিন্ত সেটা কেন ডিলিট করে দিলো আমরা বুঝতে পারছি না।

আরও পড়ুনঃ আত্মহত্যা প্রসঙ্গে আসল কারণ জানালেন তিশা

তিনি আরও বলেন, কোনো কারণে বা ওর পেজ ওর নিয়ন্ত্রণে আছে কিনা জানতে হবে। ওর সঙ্গে কথা বলতে হবে, কারণ শুনতে হবে। আমরা গতকাল থেকে একটু বিব্রত ছিলাম ওর কথাবার্তা শুনে। আমাদের একটি বিবৃতি দেওয়ার কথা ছিল। যে কোনো শিল্পীরই উচিত নয় কোন সাংবাদিক কষ্ট পায় এমন কোনো কাজ করা। আমরা শিল্পী, সাংবাদিক পরম্পরায় কাজ করি। শিল্পীদের জন্য সাংবাদিকরা অনেক কাজ করে। তারাই একটা শিল্পীকে প্রমোট করে। শিল্পীদের কাজের সঙ্গে দর্শকদের যোগাযোগটা করিয়ে দেয়। কোনো সাংবাদিককে হেও করে কথা বলা, সেটা যে কোনো শিল্পীকেই মানায় না, আমরা তা গ্রহণ করতে পারি না। আমি ওর সঙ্গে কথা বলবো।

বিগত কয়েকদিনের অসুস্থতা এবং আমার পারসোনাল লাইফ নিয়ে নানান ভিত্তিহীন কথা ও সংবাদ এবং পরিচিত ওপরিচিত বিভিন্ন ফোন কলে আমি অনেকটাই মেন্টালি পাজলড ছিলাম।

এমন সময়ে এক সাংবাদিক ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে আমি নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উত্তেজিত হয়ে কিছু কথা বলে ফেলি যা আসলে ইনটেনশনালি ছিলো না।

সাংবাদিক ভাইদের উদ্দেশে একটা কথা আমি বলতে চাই, আমার সফলতার একটা অংশজুড়ে আপনারাও আছেন এবং আপনাদের প্রতি আমার শ্রদ্ধা ও সন্মান সমসময়ই ছিল এবং থাকবে।

আমার অনাকাঙ্ক্ষিত কথায় আপনারা কষ্ট পেয়ে থাকলে তা ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। সবার উদ্দেশে আমার একটাই কথা আপনারা আমাকে আমার কাজ ও আপনাদের ভালোবাসায় এতদূর এনেছেন এবং ভবিষ্যতেও কোনো প্রকার গুজবে কান না দিয়ে আমার কাজ ও আমাকে ভালোবেসে যাবেন। আপনাদের সবার দোয়াতে আমাকে রাখবেন।

প্রসঙ্গত, গত ১৫ নভেম্বর মধ্যরাতে রাজধানীর রাজারবাগে নিজ বাসায় ঘুমের ওষুধ সেবন করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন তিশা। পরে তাকে উদ্ধার করে দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। ১৬ নভেম্বর চিকিৎসা শেষে বাসায় ফেরেন এই অভিনেত্রী। বর্তমানে সুস্থ আছেন তিশা।

২৪ ঘন্টা আপডেট নিউজ পেতে bdtribune24/বিডিট্রিবিউন২৪ এর ফেসবুক পেজ ফলো করুন